সিরাজদ্দৌলাকে পরাজিত করা লর্ড ক্লাইভের মুর্তি নিয়ে ব্রিটেনে চলছে পক্ষে বিপক্ষে ক্যাম্পেইন

3896678a

আমিরুল ইসলাম বেলাল ঃ বাংলা বিহার উড়িষ্যার শেষ নবাব সিরজুদ্দৌলার পতন আর ভারতীয় উপমহাদেশে ব্রিটিশ উপনিবেশের মুল কারিগর তৎকালীন ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর প্রধান রবার্ট লর্ড ক্লাইভের মুর্তি অপসারনে লন্ডন ও লর্ড ক্লাইভের জন্মভূমি ওয়েষ্ট মিডল্যান্ডসের শ্রুসভুরিতেও চলছে পক্ষে বিপক্ষে ক্যাম্পেইন। তবে সাম্প্রতিক সময়ে দাস ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সচেতন ব্রিটিশদের ফুসেঁ উঠে বিভিন্ন শহরে দাস ব্যবসায়ীদের মুর্তি অপসারনে সোচ্চার তৎপরতা শুরু হওয়ায় লন্ডনের ফরেন অফিসের সামনে এবং শ্রুসভুরি সিটি সেন্টারের পাদদেশে থাকা এক সময়কার প্রতাপশালী এই ব্রিটিশ কর্মকর্তার মুর্তি অপসারণের পক্ষের সংখ্যাই বেশী। ইতিমধ্যে স্থানীয়দের লন্ডনের ফরেন অফিসের সামনের মুর্তি অপসারনে প্রায় ৮০ হাজার এবং শ্রুশভূরি সিটি সেন্টারে থাকা মুর্তি অপসারণে প্রায় ২০ হাজার ব্রিটিশ পিটিশনের মাধ্যমে এর পক্ষে সমর্থন জানিয়েছেন। শ্রুশভূরি শহরে প্রায় দেড় যুগ ধরে থাকা স্থানীয় ব্যবসায়ী তাজ উদ্দিন জানান, এই ক্যাম্পেইনের জন্য ইতিমধ্যে স্থানীয় জনগনের মধ্যে শ্রুসভুরি কাউন্সিলের পক্ষ থেকে পক্ষ-বিপক্ষের জন্য ভোটিং আহবান করা হয়েছে। শীঘ্রই এর ফলাফল জানানো হবে আর তখনই বোঝা যাবে শ্রুশভূরি সিটি সেন্টারে থাকা রবার্ট লর্ড ক্লাইভের মুর্তি সরানো হবে কি না। আর লন্ডন ফরেস অফিসের সামনে থাকা মুর্তিটার বিষয়েও এখনো সিদ্ধান্ত আসেনি। তবে তৎকালীন সময়ে ব্রিটিশদের একটি শক্ত অর্থনীতির ভিত্তিতে পৌছাতে এবং বৃটিশ সরকারের স্বার্থেই রবার্ট ক্লাইভ কাজ করেছেন বলে উল্লেখ করে তার মুর্তি সরানোর বিপক্ষেও অবস্থান নিচ্ছেন অনেক বৃটিশ। তারা এই মুর্তি অপসারণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বলছে, লর্ড ক্লাইভ তাঁর নিজের জন্য নয় যা কিছু করেছে বৃটিশদের জন্যই করেছে। অবশ্য সুখী সমৃদ্ধ বাংলা বিহার উড়িষ্যায় মীরজাফরকে প্ররোচিত করে কূট কৌশলে হত্যা লুট নির্যাতন করে ক্ষমতা গ্রহনকারী রবার্ট ক্লাইভের মুর্তি অপসরাণের ক্যাম্পেইন শুরু হওয়ায় প্রবাসী বাঙালীরাও আনন্দিত। গত সপ্তাহে শ্রুসভূরিতে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেলো অনেকে ভিন্ন শহর থেকে শ্রুসভুরীতে এসে এই ক্যাম্পেইনের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করছেন। বার্মিংহামে কমিউনিটি এক্টিভিষ্ট আবু হায়দার চৌধুরী সুইট,ওয়ালসল স্পোটিং ক্লাবের আব্দুল হামিদ তাদের মধ্যে অন্যতম। তারা জানান ইতিহাস জেনে মুলতঃ লর্ড ক্লাইভের প্রতি ঘৃণা প্রকাশ করতেই তারা শ্রুশভূরিতে লর্ড ক্লাইভের মুর্তির পাদদেশে এসেছেন।
আড়াইযুগ ধরে বুলগেরিয়ায় থাকা এই প্রবাসী বাঙালীকেও পাওয়া গেলো এসেছেন রবার্ট ক্লাইভ যিনি পরবর্তীতে লর্ড খেতাবে ভূষিত হয়েছিলেন ইতিহাসের সেই কলংকিত ব্যক্তির মুর্তি দেখতে। তিনি জানান লর্ড ক্লাইভের জন্মভূমি ঘুরতে এসে তিনি দেখেছেন তাঁর জন্মভূমির মানুষরাই তাকে তেমন শ্রদ্ধার চোখে দেখে না। অবশ্য রবার্ট লর্ড ক্লাইভকে আধিপত্যবাদী খুনী লুটেরা বলে অভিহিত করে খোদ ব্রিটিশরাই লন্ডনের ফরেন অফিসের সামনে থেকে অপসারণের ক্যাম্পেইন করছে। আর এবার তাঁর জন্মস্থান এবং যেখানে তাকেঁ সমাহিত করা হয়েছিলো সে শ্রুশভূরিতেও তার মুর্তি অপসরাণের ক্যাম্পেইন কতোটুকু সফল হয় তা সময় বলে দিতে পারবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *