২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

সব খাতের অধিকাংশ শেয়ারদর ঊর্ধ্বমুখী, বীমায় লেনদেন কম

newsup
প্রকাশিত জুন ২১, ২০২১
সব খাতের অধিকাংশ শেয়ারদর ঊর্ধ্বমুখী, বীমায় লেনদেন কম

নিউজ ডেস্কঃ ফ্লোর প্রাইস তুলে নেওয়ার কোনো প্রভাবই আজ সোমবারের শেয়ারবাজারের লেনদেনে নেই। একমাত্র বীমা খাত ছাড়া অন্য সব খাতের শেয়ারদর বাড়ছে। তাতে বাজার মূল্য সূচকও বেশ ঊর্ধ্বমুখী।

গত দুইদিনের তুলনায় লেনদেনের গতি বাড়লে বীমার লেনদেনে এক অর্থে ধস নেমেছে। গতকাল ডিএসইর মোট লেনদেনে এ খাতের অংশ ২৯ শতাংশ থাকলে, আজ লেনদেনে দুপুর ১টায় তা ১৩ শতাংশে নেমেছে।

লেনদেনের প্রথম তিন ঘণ্টা শেষে দুপুর ১টায় প্রধান শেয়ারবাজার ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ৭১ পয়েন্ট বেড়ে ৬১৪০ পয়েন্টে অবস্থান করতে দেখা গেছে। সূচক বৃদ্ধির হার ছিল ১.১৭ শতাংশ।

এ সময় ২৮২ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল, বিপরীতে দর হারিয়ে কেনাবেচা হচ্ছিল ৬৪টি শেয়ার। দর অপরিবর্তিত অবস্থায় ২৬টি কেনাবেচা হতে দেখা গেছে।

দুপুর ১২টায় ডিএসইতে ৩১ ব্যাংক কোম্পানির মধ্যে ২৮টিই দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল। সার্বিকভাবে এ খাতের দরবৃদ্ধির হার ছিল ২.৪১%। ব্যাংকের প্রায় সব শেয়ারের দরবৃদ্ধি এ সময় সূচক বাড়িয়েছিল ৩৮ পয়েন্ট।

এছাড়া প্রকৌশল খাতের ৪২ কোম্পানির মধ্যে ২৫টি দর বেড়ে এবং ১৫টি দর হারিয়ে কেনাবেচা হতে দেখা গেছে। আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতের লেনদেন হওয়া ২২ কোম্পানির মধ্যে দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল ১৮টি।

ওষুধ ও রসায়ন খাতের লেনদেনে আসা ৩০ কোম্পানির মধ্যে ২৪টিই দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল দুপুর সাড়ে ১২টায়। এ দিন দরবৃদ্ধির হার ছিল পৌনে ৩ শতাংশ।

তবে এ সময় দর হারানোর ধারায় থাকা একমাত্র বীমা খাতের লেনদেনে আসা ৪৯ শেয়ারের মধ্যে ২৯টিই দর হারিয়ে কেনাবেচা হচ্ছিল। দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল ১৬টি। অন্য সব খাতের বেশিরভাগ শেয়ারই দর বেড়ে কেনাবেচা হতে দেখা গেছে।

অধিকাংশ শেয়ার দর বেড়ে কেনাবেচা হলেও সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ দরে কেনাবেচা হওয়ার শেয়ার সংখ্যা ছিল তুলনামূলক কম। দুপুর সাড়ে ১২টায় ৯ কোম্পানির শেয়ারদর ৯ থেকে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ বেশি দরে কেনাবেচা হচ্ছিল।

সোমবার সবার ওপরে ছিল তমিজুদ্দিন টেক্সটাইল, পেপার প্রসেসিং এবং মনোস্পুল পেপার। এই তিন কোম্পানি সম্প্রতি ওটিসি থেকে মূল বাজারে ফিরেছে। টানা সপ্তম দিনে এই তিন শেয়ার সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ দরে কেনাবেচা হচ্ছে।

দরবৃদ্ধির তালিকায় এর পরের অবস্থানে ছিল আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ, ইন্ট্রাকো সিএনজি, প্রাইমটেক্স, মুন্নু ফেব্রিক্স, খান ব্রাদার্স পিপি ওভেন ব্যাগ এবং ইউনিক হোটেল। ৫ শতাংশের ওপর দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল ৩৪ শেয়ার।

বিপরীতে সর্বোচ্চ প্রায় ১০ শতাংশ দর হারিয়ে দরপতনের শীর্ষে ছিল সী পার্ল হোটেল। ৫ শতাংশের ওপর দর হারিয়ে দরপতনের শীর্ষে ছিল রূপালী ব্যাংক, সোনালী পেপার এবং প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স।

প্রথম আড়াই ঘণ্টায় প্রায় ৫৯ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন নিয়ে লেনদেনের শীর্ষে ছিল বেক্সিমকো লিমিটেড। ৫১ কোটি টাকার লেনদেন নিয়ে এর পরের অবস্থানে ছিল ম্যাকসন্স স্পিনিং।

এদিকে শেয়ারদরের সঙ্গে বীমা খাতের লেনদেনেও ধস নেমেছে। দুপুর ১টা পর্যন্ত ডিএসইতে ১ হাজার ৩০১ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছিল। এর মধ্যে বীমা খাতের শেয়ার লেনদেন ছিল ১৬৯ কোটি টাকার, যা মোটের মাত্র ১৩ শতাংশ। গতকালও ডিএসইর লেনদেনে বীমা খাতের অংশ ছিল মোটের ২৮.৮৫ শতাংশ।

বেক্সিমকো লিমিটেড নামক শেয়ারের লেনদেন নিয়ে আজকে একক খাত হিসেবে লেনদেনের শীর্ষে বিবিধ খাত। এ সময় এ খাতের লেনদেন ছিল ১৫৭ কোটি টাকার, যা ছিল মোটের ১৩.৫৮ শতাংশ। এ লেনদেনের সিংহভাগই ছিল বেক্সিমকো লিমিটেড ও ন্যাশনাল ফিডের।

ব্যাংক খাতের লেনদেন ছিল তৃতীয় অবস্থানে। এ খাতের লেনদেন ছিল এ সময় পর্যন্ত ডিএসইর মোট লেনদেনের ১২.৩৭ শতাংশ।


সংবাদটি পড়ে ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

https://www.booked.net

+22
°
C
+22°
+19°
London
Monday, 29

 

See 7-Day Forecast