দুপুর ১২টায় ডিএসইর লেনদেন পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, এ খাতের ৩১ কোম্পানির মধ্যে ২৩টি দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল। দর হারিয়ে কেনাবেচা হচ্ছিল ৩টি এবং বাকি ৫টির দর ছিল অপরিবর্তিত। সার্বিকভাবে এ খাতের দর বেড়েছিল দেড় শতাংশ।

ব্যাংক খাতের শেয়ারদর বৃদ্ধি সূচকের পতন ঠেকাতে পারছে না।

দুপুর ১২টায় ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স গতকালের তুলনায় ২৯ পয়েন্ট হারিয়ে ৬০০৬ পয়েন্টে অবস্থান করছিল।

এ সময় এ বাজারে ৮৬ শেয়ারের দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল। বিপরীতে ২৬৫ শেয়ার কেনাবেচা হচ্ছিল দর হারিয়ে।

ব্যাংক খাতের বাইরে আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতে মিশ্রধারা দেখা গেছে। এ খাতের ২২ কোম্পানির মধ্যে ১০টি দর বেড়ে, ৭টি দর হারিয়ে এবং ৫টি দর অপরিবর্তিত অবস্থায় কেনাবেচা হচ্ছিল।

এ সময় সময়ের আলোচিত বীমা খাতের ৩৭টি কোম্পানির শেয়ার দর হারিয়ে কেনাবেচা হতে দেখা গেছে। দর বেড়ে কেনাবেচা হচ্ছিল ১২ শেয়ার। তবে সার্বিক দরপতনের হার ১ শতাংশে সীমাবদ্ধ রয়েছে।

বস্ত্র খাতের ৫ শেয়ারের দরবৃদ্ধির বিপরীতে ৫০টিকেই দর হারাতে দেখা গেছে। এতে সার্বিকভাবে এ খাতের দর কমেছে আড়াই শতাংশ।

প্রকৌশল খাতে ৫ শেয়ারের দর বৃদ্ধির বিপরীতে ৩৬ শেয়ারকে এ সময় দর হারিয়ে কেনাবেচা হতে দেখা যায়।

ওষুধ ও রসায়ন খাতেও একই অবস্থা। ৯ শেয়ারের দর বেড়ে এবং ২১ শেয়ার দর হারিয়ে কেনাবেচা হচ্ছিল দুপুর ১২টায়।

জ্বালানি ও বিদ্যুৎ, খাদ্য ও আনুসঙ্গিকসহ অন্য সব খাতে একই অবস্থা।

সার্বিক দরপতনের মধ্যে শেয়ার কেনাবেচায়ও বিনিয়োগকারীরা কিছুটা সর্তকতা অবলম্বন করছেন। এতে শেয়ার কেনাবেচার পরিমাণও গত কিছু দিনের তুলনায় কমেছে।

এদিন প্রথম দুই ঘণ্টার লেনদেন সময়ে ডিএসইতে ৮৪৬ কোটি ৫০ লাখ টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে।

একক খাত হিসেবে সোমবারও বীমা রয়েছে লেনদেনের শীর্ষে। দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ খাতের ৪৯ কোম্পানির ১৭৯ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে, যা মোটের ২১ শতাংশ। লেনদেনের এ হার গতকালের তুলনায় সামান্য বেশি।

বীমার মত দরপতন সত্ত্বেও খাতওয়ারি লেনদেনের দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল বস্ত্র খাত। এ খাতের ৫৭ কোম্পানির ১১২ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়, যা মোটের সোয়া ১৩ শতাংশ।

তৃতীয় অবস্থানে ব্যাংক খাত। এ খাতের ৩১ কোম্পানির দুপুর ১২টা পর্যন্ত ১০৬ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে, যা এ সময় পর্যন্ত মোট লেনদেনের সাড়ে ১২ শতাংশ। গতকাল ডিএসইর মোট লেনদেনে ব্যাংক খাতের অংশ ছিল মোটের সাড়ে ৭ শতাংশ।

একক কোম্পানি হিসেবে লেনদেনের শীর্ষে আছে যথারীতি বেক্সিমকো লিমিটেড। যদিও শেয়ারটি গতকালের তুলনায় আড়াই টাকা করে দর হারিয়ে ৯৩ টাকা ৬০ পয়সায় কেনাবেচা হতে দেখা গেছে।

দুপুর ১২টায় ৯ শতাংশের ওপর দর বেড়ে দরবৃদ্ধির শীর্ষে অবস্থান করছিল ইন্টারন্যাশনাল লিজিং, মুন্নু ফেব্রিক্স, ইনডেক্স এগ্রো, রূপালী ব্যাংক এবং বিআইএফসি।

বিপরীতে পৌনে ১০ শতাংশ দর হারিয়ে দরপতনের শীর্ষে ছিল হাওয়েল টেক্সটাইল।