২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা বাংলাদেশের অর্থনীতির গতি কমিয়ে দিচ্ছে

newsup
প্রকাশিত জুলাই ২৪, ২০২১
করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা বাংলাদেশের অর্থনীতির গতি কমিয়ে দিচ্ছে

নিউজ ডেস্কঃ করোনার প্রথম ধাক্কা সামলে বাংলাদেশের অর্থনীতি বেশ ঘুরে দাঁড়াচ্ছিল। কিন্তু করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা সামলাতে ফের করাকড়ি আরোপ করায় অর্থনীতির গতি শ্লথ হয়ে পড়ার আশঙ্কা করেছে এশীয় উন্নয় ব্যাংক (এডিবি)। গত এপ্রিলে এশিয়ার অর্থনীতির পূর্বাভাস হালনাগাদ করে সম্প্রতি সম্পূরক পূর্বাভাস প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সংস্থাটি। এতে এশিয়ার অর্থনীতির আগের পূর্বাভাস কিছুটা কমানো হয়েছে।

এপ্রিলের প্রতিবেদনে এ বছর এশিয়ায় ৭ দশমিক ৩ শতাংশ মোট দেশজ উত্পাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির প্রত্যাশা ছিল। জুলাই মাসে হালনাগাদ করে এই হার ৭ দশমিক ২ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়েছে। তবে এই হারকেও শক্তিশালী পুনরুদ্ধারের পূর্বাভাস বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

বাংলাদেশের বিষয়ে বলা হয়েছে, বিদায়ি ২০২০-২১ অর্থবছরের ১১ মাসের তথ্যে দেখা যায় রপ্তানি আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় বেড়েছে ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ। ১০ মাসে রেমিট্যান্স বেড়েছে ৩৯ দশমিক ৫ শতাংশ। অর্থবছরের ১০ মাসে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ১২ দশমিক ৯ শতাংশ বেশি রাজস্ব আদায় করতে পেরেছে। তবে করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা সামলাতে এপ্রিলের শুরু থেকে দেশে চলাচলে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। ফলে ব্যবসা-বাণিজ্য ফের বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় দেশের অর্থনীতির গতি ধীর করে দিচ্ছে।

এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক সাপ্লিমেন্ট জুলাই ২০২১ শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অর্থনীতি পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। মধ্য এশিয়া এবং পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি আগের পূর্বাভাসের চেয়ে বেশি হবে। তবে দক্ষিণ এশিয়া, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রবৃদ্ধি আগের পূর্বাভাসের চেয়ে কমবে। সব মিলিয়ে উন্নয়নশীল এশিয়ার জিডিপি গড়ে ৭ দশমিক ২ শতাংশ বাড়বে এ বছর। আগামী ২০২২ সালে এটি ৫ দশমিক ৪ শতাংশে নেমে আসতে পারে।

এ বছর চীনের প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৮ দশমিক ১ শতাংশ যা ২০২২ সালে সাড়ে ৫ ভাগে নেমে আসবে। এ বছর ভারতের প্রবৃদ্ধি হতে পারে ১০ শতাংশ যা পরের বছর সাড়ে ৭ ভাগে নেমে আসতে পারে।

পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি সাড়ে ৭ শতাংশে উন্নীত হতে পারে। এপ্রিলের পূর্বাভাস ছিল ৭ দশমিক ৪ শতাংশ। এ বছর এপ্রিল পর্যন্ত প্রথম প্রান্তিকে দেশগুলোতে অর্থনীতির গতি শক্তিশালী হয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়ার বিষয়ে উল্লেখ করা হয়েছে, এ বছর শেষ নাগাদ দক্ষিণ এশিয়ার প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৮ দশমিক ৯ শতাংশ যা ২০২২ সালে ৭ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে। ভারতের প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস ১১ শতাংশ থেকে নামিয়ে ১০ শতাংশ করা হয়েছে। তবে দুই দফায় লকডাউনে ভুটানের অর্থনীতি এ বছর ৬ দশমিক ৩ শতাংশ সংকোচনের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। দেশটিতে এই লকডাউনের প্রভাবে করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে। তবে অর্থনীতির গতি কমে গেছে। মালদ্বীপে এ বছরের প্রথম দিকে পর্যটন আগমন প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। তবে দেশটিতে গত মার্চে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় বহু দ্বীপ লকডাউন করতে হয়েছে। এতে মালদ্বীপের অর্থনীতির গতিও কমে যাওয়ার আশঙ্কা করা হয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে নেপালে ২ দশমিক ১ শতাংশের সংকোচনের ধারণা করা হয়েছে। চলতি বছরের এপ্রিলের আগ পর্যন্ত আফগানিস্তানের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথে ছিল। কিন্তু দেশটির নিরাপত্তা নিয়ে নতুন করে উদ্বেগ তৈরি হওয়ায় পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়াও থমকে যাচ্ছে। ২০২০ সালে দেশটির অর্থনীতি ১ দশমিক ৯ শতাংশ সংকুচিত হয়েছিল।

এডিবির প্রতিবেদেনে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস ৪ দশমিক ৪ থেকে কমিয়ে ৪ শতাংশ করা হয়েছে। মধ্য এশিয়ার পূর্বাভাস ৩ দশমিক ৪ থেকে বাড়িয়ে ৩ দশমিক ৬ শতাংশ করা হয়েছে।

সব মিলিয়ে এশিয়ার মূল্যস্ফীতি কিছুটা বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এপ্রিলের পূর্বাভাসে ২ দশমিক ৩ শতাংশ মূলস্ফীতির হার ধারণা করা হলেও এবারের প্রতিবেদনে এই হার ২ দশমিক ৪ শতাংশ করা হয়েছে। তবে আগামী বছর মূল্যস্ফীতির হার ২ দশমিক ৭ শতাংশের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।

এডিবি উল্লেখ করেছে, করোনার প্রথম ধাক্কা কাটিয়ে বেশ ভালোই এগুচ্ছিল এশিয়ার অর্থনীতি। কিন্তু নতুন করে ছড়িয়ে পড়া কোভিড-১৯ উদ্বেগ বাড়িয়েছে। জুনের মাঝামাঝি সময়ের হিসাবে প্রতিদিন গড়ে করোনার আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ৩৪ হাজারে ছাড়িয়ে যায়। মে মাসের মাঝামাঝি দৈনিক শনাক্তের হার ছিল ১ লাখ ৯ হাজারের মতো। প্রতি ১০ লাখে ২৬ জন শনাক্ত হচ্ছে এশিয়া অঞ্চলে। তবে বিশ্বে সংক্রমণের গড় হার (প্রতি ১০ লাখে ৪৯) এর তুলনায় প্রায় অর্ধেক। করোনার এই ধাক্কা তুলনামূলক বেশি ক্ষতিগ্রস্ত করছে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে। প্যাসিফিক অঞ্চলে পাপুয়া নিউগিনি এবং ফিজিতেও আঘাত হেনেছে। তবে পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে করোনার সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে। বহু দেশে ভ্যাক্সিন কার্যক্রম এগিয়েছে। কিন্তু উন্নয়নশীল এশিয়ার দেশগুলোতে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ তৈরিতে পিছিয়ে রয়েছে। জুন পর্যন্ত উন্নয়নশীল দেশগুলোতে প্রতি ১০০ জনে ৪১ দশমিক ৬ ডোজ টিকা নিশ্চিত করতে পেরেছে যা বৈশ্বিক গড় ৩৯ দশমিক ২ থেকে কিছুটা বেশি। তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (৯৭ দশমিক ৬ শতাংশ) ইউরোপীয় ইউনিয়ন (৮১ দশমিক ৮ শতাংশ) থেকে পিছিয়ে রয়েছে।


সংবাদটি পড়ে ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

https://www.booked.net

+22
°
C
+22°
+19°
London
Monday, 29

 

See 7-Day Forecast